ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫শে জুন ২০২৪, ১২ই আষাঢ় ১৪৩১


১১ নম্বর স্বামীর প্রশ্রয়েই বেপরোয়া মডেল মৌ!


৬ আগস্ট ২০২১ ০৬:৩৭

আপডেট:
৬ আগস্ট ২০২১ ০৬:৪০

 কোটি টাকার এ প্রশ্নের উত্তরে ধীরে ধীরে বের হতে শুরু করেছে। ভুক্তভোগী পরিবাররাই, সংশ্লিষ্ট জায়গায় তাদের পরিবারদের সদস্যদের নাম প্রকাশ করতে শুরু করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে, চট্টগ্রামের একজন জানিয়েছেন, মোহাম্মদপুর থেকে গ্রেপ্তার হওয়া মডেল মৌ এর ১১ নম্বর স্বামী ফার ইস্ট লাইফ ইনসুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম।

মৌ এর বিভিন্ন পার্টিতে ঘনিষ্ঠতার সূত্রেই এক পর্যায়ে মৌকে বিয়ে করেন তিনি। এরপর থেকে মৌ এর সিন্ডিকেটের বিভিন্ন মেয়েদের ব্যবহার করে, নজরুল ইসলাম, তার ব্যবসায়িক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে থাকেন নজরুল ইসলাম। পরবর্তীতে তাদের ডিভোর্স হয়েছে বলেও জানিয়েছে ওই সূত্র।

উল্লেখ্য, যোগদানের পর থেকেই ফার ইস্ট ইসলামী ইনসুরেন্সে খরচের বহর বাড়িয়ে ছিলেন এর চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। পরিচালনা পর্ষদ থেকে ২০১৭ সালে একটি আইফোন কেনা হয়। সিঙ্গাপুর থেকে আনা ওই ফোনের দাম তখন দেখানো হয় ২ লাখ ১০ হাজার টাকা।

বীমা আইন অনুযায়ী, চেয়ারম্যানের গাড়ীর দাম সর্বোচ্চ দাম ৮৫ লাখ টাকা হলেও তিনিও তাও বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছেন। পর্ষদের চেয়ারম্যানের জন্য সোয়া কোটি টাকা দামের গাড়িও কেনা হয়েছে।

এছাড়াও মডেল পিয়াসার সাথে প্রভাবশালী বিভিন্ন জনের সাথে উঠে এসেছে ইউনিয়ন ব্যাংকের এমডি এবিএম মোকাম্মেল হক চৌধুরীর নাম। নাম প্রকাশ না করার শর্তে, একজন জানিয়েছেন, ব্যাংকিং নানান সুযোগ-সুবিধা ফার ইস্ট ইসলামী ইনসুরেন্সের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের সাথে নিয়ে মোকাম্মিল হক চৌধুরী মডেল পিয়াসাকে দিয়েছেন।

পিয়াসা ও মৌ এর বিভিন্ন ভিআইপি পার্টির তারা নিয়মিত সদস্য ছিলেন বলে জানিয়েছে ওই সূত্র। পরীমনির বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও মোকাম্মিল হক চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। আইন-শৃংখলা বাহিনীও মৌ-পিয়াসা-পরীমনিদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতাদের তালিকা ধরে, এর সত্যতা খুঁজে বের করতে কাজ করছে।